শাহজালালের মাজার কেন নির্বাচনী প্রচারণার তীর্থস্থান?

প্রকাশিত: ০৫ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ ০১:৫৪:৫৩

সিলেট-১ আসন নিয়ে একটা মিথ আছে- এ আসনে যে দল জয়ী হয়, সে দলই সরকার গঠন করে। এ কারণেই সিলেটে ইসলামে পতাকা উড্ডয়নকারী হযরত শাহজালাল (রহ.) এর মাজার জিয়ারতের মাধ্যমে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন বিভিন্ন দলের প্রধানরা। এমনকি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানও একাধিকবার এই মাজার জিয়ারত করেছেন।

সিলেটে মাজার জিয়ারতের মাধ্যমে দেশের প্রধান প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর নির্বাচনী প্রচারণা শুরুর বিষয়টি সংক্ষেপে এভাবে বর্ণনা করলেন হযরত শাহজালাল (রহ.) এর মাজারের খাদেম সৈয়দ সাব্বির আহমদ।

সিলেট থেকে জাতীয় নির্বাচনের প্রচারণা শুরু করা দেশের রাজনীতিতে অনেকটা ‘রীতিতে’ পরিণত হয়েছে। বিগত কয়েকটি জাতীয় নির্বাচনের প্রচারণা শুরু হয় সিলেট থেকেই। এবারও তার ব্যত্যয় ঘটেনি।

ইতোমধ্যে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সিলেট থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে একাদশ জাতীয় নির্বাচনের প্রচারণা শুরু করেছেন। ‘নির্বাচনের প্রচারণায় না গেলেও’ রায়কে সামনে রেখে সোমবার হযরত শাহজালালের মাজারে যাচ্ছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

গত ৩০ জানুয়ারি সিলেটের হযরত শাহজালাল (রহ.), হযরত শাহপরান (রহ.) এবং হযরত গাজী বোরহান উদ্দিন (রহ.) এর মাজার জিয়ারত করে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘পূণ্যভূমি সিলেট থেকে নির্বাচনী প্রচারণা গতবারও শুরু করেছি, এবারও করেছি। আপনারা উন্নয়ন সমৃদ্ধির প্রতীক নৌকায় ভোট দিন।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিলেট সফরের দু’দিনের মাথায় ১ ফেব্রুয়ারি জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ হযরত শাহজালাল (রহ.) এ মাজার জিয়ারতের মাধ্যমে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন।

মাজার জিয়ারত শেষে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘আমি সিলেট থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করলাম। আগামী নির্বাচনে জাতীয় পার্টি বিরোধী দল হিসেবেই নির্বাচন করবে। আওয়ামী লীগের সঙ্গে কোনো ঐক্য হবে না। সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন করব।’

সোমবার সিলেট সফরে যাচ্ছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তবে খালেদা জিয়ার সিলেট সফরকে তার ‘ব্যক্তিগত’ সফর হিসেবে দেখছেন দলের নেতাকর্মীরা। যদিও তার সফরকে ঘিরে রোববার শহরে বিশাল মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা বের করেন বিএনপি নেতাকর্মীরা।

নেতারা সিলেট থেকেই কেন নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন জানতে চাইলে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘এটা ব্যক্তিগত বিষয়। সিলেট থেকেই কেন নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন এটা আসলে তারাই বলতে পারবেন।’

তবে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টি নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছেন সিলেট থেকে। আমাদের নেত্রীর সিলেট সফরের সঙ্গে নির্বাচনী প্রচারণার সম্পর্ক নেই। সেখানে কোনো জনসভাও করা হচ্ছে না।’

তিনি বলেন, ‘উনি যাচ্ছেন পার্সোনাল (ব্যক্তিগত) বিষয়ে, মাজার জিয়ারত করার জন্য। ছেলে, বোনসহ বহু আত্মীয়-স্বজনকে তিনি হারিয়েছেন। সেজন্য তিনি মাজার জিয়ারতে যাচ্ছেন। ওদের সঙ্গে কোনো প্রতিযোগিতায় আমরা নামছি না।’

ব্যারিস্টার মওদুদ বলেন, ‘আমাদের জনসভা করতে দিচ্ছে না। উনারা প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন। এটা সাংবিধানিকভাবে অনৈতিক। তাদের প্রচারণা যদি এলাও (অনুমোদন দেয়া) হয় তাহলে আমাদেরকেও সুযোগ দেয়া উচিত। আমাদের বেলায় হাজারো রেস্ট্রিকশন (বাধা-বিপত্তি)।’

অনেকটা ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘আমাদের নির্বাহী কমিটির সভাটা করতে হলো হোটেলে। কোথাও করতে দেয়া হলো না। দেশটা কোথায় যাচ্ছে? আমাদের হাত-পা বেঁধে বলা হচ্ছে সাঁতার কাটেন!’

জানতে চাইলে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেট গেলেন, এখন তারাও যাবেন। একটা দল কতটা দেউলিয়া এ থেকেই বোঝা যায়। তাদের নিজস্ব স্বকীয়তা বা কোনো মেধা নেই।’

তিনি বলেন, ‘সব ধরনের উপায় অবলম্বন করে ব্যর্থ হবার পর খালেদা জিয়া এখন সিলেট যাচ্ছেন। পীর-আউলিয়ার কাছে যাচ্ছেন। আল্লাহ্‌ও তাকে এতিমের টাকা আত্মসাৎ করার অপরাধ ক্ষমা করবেন না।’

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ‘বিএনপির সবসময়ই আওয়ামী লীগকে নকল করার টেনডেন্সি (প্রবণতা) আছে। সেটা আমরা আগেও দেখেছি। তাদের ভিশন-২০৩০ তার প্রমাণ। আমরা ভিশন-২০২১ দিয়েছিলাম, তার পরপরই তারা ভিশন-২০৩০ দিলো।’

দেশের শীর্ষ নেতৃত্ব কেন সিলেট থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন- জানতে চাইলে জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের বলেন, ‘এটা আসলে বিশ্বাস থেকেই করেন। ধর্মীয় বিশ্বাস থেকে উনার সিলটে মাজার জিয়ারত করে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন। এটা আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতেও আছে। তারা সাধু-সন্যাসীদের দোয়া নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন।’

আমাদের দেশের সুন্নি মুসলমানরা ধর্মভীরুতা থেকেই মাজার জিয়ারত করে থাকেন বলেও মনে করেন তিনি।

জানতে চাইলে হযরত শাহজালাল (র.) এর মাজারের খাদেম সৈয়দ সাব্বির আহমদ বলেন, ‘পূণ্যভূমি সিলেট নিয়ে সকল রাজনৈতিক দলেরই দুর্বলতা আছে। আর সিলেট-১ আসন একটি গুরুত্বপূর্ণ আসন। মিথ আছে- এ আসনে যে দল জয়ী হয়, সে দলই সরকার গঠন করে।’

এ কারণেই আধ্যাত্মিক জগতের শিরোমনি হযরত শাহজালাল (র.) এর মাজার জিয়ারতের মাধ্যমেই আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সিলেট থেকেই নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন বলে মনে করেন তিনি।

মাজারের খাদেম আরও বলেন, ‘রাজনৈতিক নেতাকর্মীরা বরকতের আশায় এ কাজটা করে থাকেন। শুধু বর্তমান প্রজন্মের শীর্ষ নেতৃবৃন্দই নন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানও হযরত শাহজালাল (রহ.) এর মাজার জিয়ারত করেছেন একাধিকবার।’

তবে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘মুসলিম দেশ হিসেবে এটা হতে পারে। এটা ধর্মভীরুতা থেকে হয়। ভালো দিকে হচ্ছে এবারও ভারতকে একটা নোটিশ দেয়া হলো- তুমি যত কিছুই কর না কেন মুসলমানরা তাদের স্বকীয়তা বজায় রাখছে।’

খালেদা জিয়ার সিলেট সফর প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী খুব চতুরতার সঙ্গে খালেদা জিয়াকে অন্তরীণ করে রেখেছেন। কোনো গ্রেফতারি পরোয়ানা দেননি, কিন্তু প্রতিদিনই (সপ্তাহে তিন দিন) কোর্টে যেতে হয়। কোথাও বের হতে পারেন না। জনগণ তো উনাকে (খালেদা জিয়া) দেখতে চান।’

ড. জাফরুল্লাহ বলেন, ‘জনগণের সঙ্গে উনার যোগাযোগ দরকার, মূলত সময় খুব বেশি নেই। ৮ তারিখ (ফেব্রুয়ারি) রায় হবে। রায় যাই হোক, বহুদিন পর একটা বুদ্ধিমতীর মতো কাজ করলেন তিনি। শাহজালাল (রহ.) এর মাজার জিয়ারত হবে, জনগণের সঙ্গে সাক্ষাৎ হবে- এটা ভালো লক্ষণ।’

তিনি আরও বলেন, ‘এখানে দুটি বিষয় আছে- সামনে একটা রায় আছে, নির্বাচনও আছে। এখন জনগণের সঙ্গে যোগাযোগটা হয়ে গেল। উনাকে মিটিং করতে দেয়া হয় না, রাস্তায় নামতে দেয় না। এটাও তো একটা সুযোগ।’

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন





ব্রেকিং নিউজ