নেচে নেচে গাড়ি থামান যে ট্রাফিক পুলিশ!

প্রকাশিত: ২৯ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১০:০৬:২১ || পরিবর্তিত: ২৯ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১০:০৬:২১

তাঁকে দেখলে মনে হবে ‘কুইন’ ব্যান্ডের ফ্রেডি মার্কারি পুনরায় জীবন পেয়ে উঠে এসেছেন এই মর্ত্যলোকে! ব্রিটেনের প্রয়াত কিংবদন্তি সেই গায়কের মতোই হুবহু মুখাবয়ব আর গোঁফ। কিন্তু রাস্তায় তাঁর গাড়ি সামলানোর কায়দা-কানুন দেখলে আবারও ভুল হবে। প্রয়াত পপ কিংবদন্তি মাইকেল জ্যাকসনের ‘মুনওয়াকিং’য়ের ঢংয়ে যানজট সামলাচ্ছেন নেচে নেচে! তিনি রনজিৎ সিং, ইন্দোরের ট্রাফিক পুলিশ।

ব্যতিক্রমী দক্ষতায় যানজট সামাল দেওয়া এ মানুষটি আলোড়ন ফেলেছেন ভারতজুড়ে। ২০ লাখ লোকের শহর ইন্দোরের ব্যস্ততম রাস্তায় রনজিং সিং ‘মুনওয়াকিং’ নাচের ঢংয়ে গাড়ি থামার নির্দেশ দেন, তখন কোনো চালকই তা এড়াতে পারেন না। অন্তত চোখ এড়িয়ে যাওয়ার কোনো সুযোগই নেই।

রনজিৎ সিংয়ের মতে, শুরুতে তাঁর নৃত্যসুলভ ট্রাফিক পুলিশিং দেখে মানুষ অবাক হতো। কেউ কেউ বিরক্তও হয়েছেন। কিন্তু ধীরে ধীরে তা জনপ্রিয়তা পেয়েছে এবং রাস্তার বেপরোয়া চালকটিও তাঁর নির্দেশ মেনে চলেন। সংবাদ সংস্থা এএফপিকে রনজিতের ভাষ্য, ‘আমি মাইকেল জ্যাকসনের ভক্ত এবং গাড়ি থামাতে ১২ বছর আগে থেকে তাঁর “মুনওয়াকিং” নাচ অনুকরণ করছি। শুরুতে মানুষ বিস্মিত হতো। কিন্তু কয়েক বছর ধরে এটা ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে এবং অত্যন্ত কার্যকর।’

ইন্দোরের দূষিত বাতাস আর গনগনে সূর্যের প্রখর খরতাপের নিচে দাঁড়িয়ে হাজারো গাড়ি সামলানো চাট্টিখানি কথা নয়। পথচারী কিংবা চালকদেরও ক্লান্ত লাগার কথা। রনজিতের মতে, তাঁর ‘মুনওয়াকিং’ সবার এই ক্লান্তি ভুলিয়ে দেয়, ‘শব্দ, গরম আর দূষণের মাঝে গাড়ি নিয়ন্ত্রণ করা ভীষণ ক্লান্তিকর কাজ। কিন্তু “মুনওয়াকিং” পথচারী থেকে চালকদের বিনোদন দেয়।’

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ৩৮ বছর বয়সী এই ট্রাফিক পুলিশ কিন্তু ভীষণ জনপ্রিয়। ফেসবুকে তাঁকে অনুসরণকারীর সংখ্যা প্রায় ৫০ হাজার। তাঁর নাচের ভিডিও শেয়ার করছেন হাজারো অনুসরণকারী। ব্যতিক্রমী কিন্তু কার্যকর ট্রাফিক পুলিশ হওয়ায় রনজিৎকে নিয়ে গর্বিত তাঁর বাবা-মা, ‘ভালোবাসা এবং যে উদ্ভাবনী শক্তি নিয়ে আমি কাজ করছি, সে জন্য আমার বাবা-মা ভীষণ গর্বিত।প্রজন্মনিউজ২৪.কম/এ এ মাসুদ

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন





ব্রেকিং নিউজ